দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবনের ক্যানিং পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের দিঘীরপাড় অঞ্চলের হসপিটাল মোড় এলাকায় রবিবার সকালে তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যালয় হয়ে গেলে বিজেপির কার্যালয় ক্যানিং-১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি অর্নব রায়ের নেতৃত্বে।

যেহেতু রবিবার রাজ্য বিজেপির কার্যালয়ে ক্যানিং-১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি অর্নব রায়ের নেতৃত্বে কয়েক হাজার তৃণমূল কর্মী সমর্থক যোগদান করেন বিজেপিতে।ফলে দিঘীরপাড় অঞ্চলে বিজেপির সাজো সাজো রব ছিলো কাল সকাল থেকেই|

আর যে ভাবে তৃণমূল কংগ্রেসের ভাঙন ধরলো তাতে বড়সড় চিন্তার ভাজ পড়লো শাসক দলের।রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনে আগে এই ভাবে তৃণমূল কংগ্রেসের ভাঙন তাতে সিঁদুরে মেঘ দেখছে রাজনৈতিক মহলে।ক্যানিং মহকুমা ৪ টি বিধানসভা।ক্যানিং পূর্ব ও পশ্চিম,বাসন্তী,গোসাবা।এই ৪ টি বিধানসভা তৃণমূল কংগ্রেসের দখলে।

পাশাপাশি শাসক দলের শক্তঘাটি।আর সেই শক্তঘাটিতে ভাঙন ধরাতে বিজেপি নেমে পড়লো কোমড় বেঁধে।রাজনৈতিক সূত্রে জানা গিয়েছে আগামী দিনে ক্যানিং পশ্চিম,বাসন্তী,গোসাবা বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল,পঞ্চায়েত স্তরে বিভিন্ন প্রকল্পের দুনীর্তির আখড়া গড়ে ওঠার ফলে বুথ স্তরে তৃণমূলের কর্মী সমর্থক তিক্ত বিরক্ত হয়ে শাসক দল ছেড়ে ভিড় জমাচ্ছে গেরুয়া শিবিরে।

আর এই ভাঙন আটকাতে এই সব বিধানসভা গুলিতে সম্পূর্ণ ভাবে ব্যথ শাসক দলের জেলা স্তরের নেতৃত্ব এমনি মত রাজনৈতিক মহলে।এদিকে দুপুর সাড়ে ১২ টায় ক্যানিং হসপিটাল মোড় থেকে ক্যানিং-১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি অর্নব রায়ের নেতৃত্বে কয়েকশো তৃণমূল কর্মী সমর্থক এবং বেশ কয়েক জন দিঘীরপাড় গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্যা রওনা দেয় রাজ্য বিজেপির কার্যালয় অফিসের উদ্দেশ্যে।

সেখানেই তারা যোগদান করবেন বিজেপিতে।পাশাপাশি তারা যোগদান করে ক্যানিং ফিরলে সেখানে কয়েক হাজার তৃণমূল কর্মী সমর্থক যোগদান করবে বিজেপিতে।রবিবার দুপুর ২ টায় ক্যানিং পশ্চিম বিধানসভা কেন্দ্রের রেল মার্কেট তৃণমূল কংগ্রেসের জনসভা।এই জনসভায় প্রধান বক্তা তৃণমূলের মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চ্যাটার্জী।

আর সেই সময় তৃণমূলের এই বড়সড় ভাঙন।ফলে শাসক দলের চিন্তার ভাঁজ বেড়ে গেল অনেকটা।ক্যানিং-১ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সহ সভাপতি অর্নব রায় বিজেপি তে যোগদান করার আগে ক্ষোভের সঙ্গে অভিযোগ করে বলেন তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলে এবং পঞ্চায়েতে স্তরে দুনীর্তি তে মুক্ত বাতাস নেওয়ার পরিবেশ নেই।

এমনকি দলে কোন সন্মান নেই।তাই আজ বিজেপি তে যোগদান করতে যাচ্ছি।যোগদান করে ফিরে ক্যানিং এলে এখানে আরও কয়েক হাজার তৃণমূল কর্মী সমর্থক বিজেপিতে যোগদান করবে।তিনি আর ও বলেন বিজেপির একজন কর্মী হয়ে সাধারণ মানুষকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে চায়।

অর্ণব রায়ের এর প্রসঙ্গে ক্যানিং তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি শৈবাল লাহিড়ী বলেন যারা সুবিধাবাদী ও ধান্দাবাজ যাদের দল বদল করা নীতি আছে তারাই কেবল দল বদল করতে পারে। তৃণমূলের জোড়া ফুল চিহ্নে অর্ণব রায় অনেকবার দাঁড়িয়েছেন কিন্তু জয়ী হতে পারিনি।

পরবর্তীকালে জয়ী হয়ে দেখান। এই নিয়ে ক্যানিং তৃণমূল কংগ্রেসের কোনো প্রভাব পড়বে না। তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে মানুষ আছে। এই প্রসঙ্গে সদ্য আজ বিজেপির যোগ দেওয়া অর্ণব রায় বলেন দেখা হবে লড়াইয়ের ময়দানে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here